Space for rent
Tuesday, 12 November, 2019, 7:55 AM
তাহিরপুরে শিক্ষক পেটানোর ঘটনায় আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা
Published : Tuesday, 2 July, 2019 Time : 5:47 PM, Count: 292
A+ A- A
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ে পরীক্ষার্থীকে নকলে বাধা দেয়ায় পরীক্ষার হলে ঢুকে শিক্ষককে পেটানো মামলার সেই আসামী তোফাজ্জলকে গত তিনদিনেও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনার পর মামলা দায়ের করা হলেও তোফাজ্জলসহ তার অপর সহযোগীরা অধরাই রয়ে গেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে টানা তৃতীয় দিনেরমত অভিযুক্ত আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে উপজেলার বাণিজ্যিক কেন্দ্র বাদাঘাট বাজারে বিক্ষোভ মিছিল, বিদ্যালয় চত্বরে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা। উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রায় দুই হাজার শিক্ষার্থী বিদ্যালয় চত্বর থেকে বুকে কালোব্যাজ ধারণ করে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। 

মিছিলটি হাসপাতাল, পুলিশ ফাঁড়ি, বাণিজ্যিক কেন্দ্র বাদাঘাট, কলেজরোড প্রদক্ষিণ শেষে বিদ্যালয়ে গিয়ে এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে মিলিত হয়। মানবন্ধন চলাকালে সমাবেশে শিক্ষার্থীরা তাদের বক্তব্যে বলেন, গত রবিবার সকালে বিদ্যালয়ের অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা চলাকালে অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে নকলে বাধা দেন বিদ্যালয়ের এক সহকারি শিক্ষক।  তারপর ওই শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়া অন্যান্য শিক্ষার্থীকে হলে উওপ্ত করছিল। এ সময় বাধ্য হয়ে তাকে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেন ওই সহকারি শিক্ষক।

এদিকে বাড়ি গিয়ে ওই শিক্ষার্থী তাকে হল থেকে বের করে দেয়ার ঘটনা জানানোর পর বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য আবু তাহের তার নাতিকে পরীক্ষার হল থেকে বের করে দেয়ার কারণ জানতে চান। এসময় ওই শিক্ষককে অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজ করেন এবং চাকরিচ্যুত করার হুমকি দেন। খবর পেয়ে আবু তাহেরের ছেলে তোফাজ্জল তার সহযোগীদের নিয়ে বিদ্যালয়ে ফের গিয়ে পরীক্ষার হলে ঢুকে শিক্ষক মাজেদুল ইসলামকে মারধর করে পরীক্ষায় অংশ নেয়া অন্যান্য শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার খাতা টেনে হেছড়ে ছিড়ে ফেলেন। ঘটনাটি দেখে প্রধান শিক্ষক দৌড়ে এসে তোফাজ্জলকে বাধা দিলে তোফাজ্জল নিজেকে কিলার দাবি করে প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম দানুর দিকে ফের হামলার জন্য তেড়ে এসে গুলি করে হত্যার হুমকি দেয়। পরে বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা এগিয়ে আসলে শিক্ষার্থীদের তোপের মূখে সে  তার সহযোগীদের নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পরপরই আহত সহকারি শিক্ষককে রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ 
ঘটনার পরদিন থানায় আবু তাহের, তোফাজ্জল সহ আট জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করা হয়। 

মঙ্গলবার বিদ্যালয় চত্বরে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন, প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম দানু, সহকারি প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক, আফম মুস্তাকিম আলী পীর, মুক্তার হোসেন, শাহজাহান, শফিকুল ইসলাম শিকদার,মইনুল হক,লোকমান আহমদ, লোকমান হোসেন, অনির্বাণ হাওলাদার, স্বস্থি রঞ্জন সরকার, আরপিনা আক্তার, নুরেসাবা আক্তার, আহত শিক্ষক মাজেদুল ইসলাম , অফিস সহকারি কাজি জয়নাল আবেদীনসহ আরো অনেকে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য আবু তাহের মিয়া কিংবা তার ছেলের মুঠোফোনের সংযোগ বন্ধ থাকায় কোনরুপ বক্তব্য নেয়া যায়নি। মঙ্গলবার তাহিরপুর থানার ওসি মো. আতিকুর রহমান জানান, আসামীরা বর্তমানে এলাকাছাড়া, তাদের গ্রেফতারে পুলিশী চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।



Editor in Chief: Omar Ali
356, East Rampura, Dhaka-1219, Bangladesh.
Cell: 01712479824, nrbnews24@gmail.com