Space for rent
Tuesday, 12 November, 2019, 7:58 AM
শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বাড়ছে ডেঙ্গু মশার প্রকোপ
Published : Friday, 12 July, 2019 Time : 12:56 AM, Count: 151
A+ A- A
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজধানীর  শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) দিন দিন বেড়েই চলেছে ডেঙ্গু মশার প্রকোপ। গত ১ মাসে এ পর্যন্ত ১১ জন শিক্ষার্থী ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্ত ১১ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩ জন হাসপাতালে চিকিসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন দ্বারা গঠিত মশক নিধন কমিটির কোনো  প্রকার কার্যক্রম নেই বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীরা। 

শিক্ষার্থীরা জানান, ক্যাম্পাসে শুধু  নামে আছে মশক নিধন কমিটি। মশা নিধনে তাদের নেই কোনো কার্যকারী পদক্ষেপ। যতই দিন যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিভিন আবাসিক হলে বাড়ছে মশার প্রকোপ। ফলে ডেঙ্গু, চিকনগুনিয়াসহ মশাবাহী বিভিন্ন রোগের আক্রান্ত হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে যে, গত বছর ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া ও অন্যান্য মশাবাহী রোগের বিস্তার রোধে বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাসে শুরু হয়েছিল সপ্তাহব্যাপী মশক-নিধন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও গবেষণা কর্মসূচি। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলীকে সভাপতি ও খামার বিভাগের প্রধান কৃষিবিদ খন্দকার আতিকুল ইসলামকে সদস্য সচিব করে ছয় সদস্যবিশিষ্ট মশক-নিধন কমিটি গঠন করেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

কমিটির কার্যক্রমের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- লিফলেট বিতরণ করে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা ও করণীয় সম্পর্কে সচেতন করা, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সংগঠন কর্মীদের উদ্বুদ্ধকরণ, এ কার্যক্রম সারা বছর অব্যাহত রাখা, অ্যাকশন কমিটি ও মনিটরিং কমিটি গঠন করা, ডাক্তারের ভূমিকা, রোগ সম্পর্কে সার্ভে ও গবেষণা করে ফলাফল মানুষকে জানানো, গঠনমূলকভাবে মশার নিয়ন্ত্রণ, শিক্ষার্থীদের সংযুক্তকরণ ইত্যাদি। কিন্তু প্রথমে কয়েকদিন তাদের কার্যক্রম থাকলেও পরবর্তীতে তা বন্ধ হয়ে যায়। 

এ বিষয়ে মশক নিধন কমিটির সদস্য সচিব কৃষিবিদ খন্দকার আতিকুল ইসলাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন হলের হল প্রভোষ্ট দায়িত্ব হচ্ছে হলে ঔষধ ছিটানো। তারা ( হল প্রভোষ্ট) কেন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না, তা আমরা জানা নেই। তবে খুব দ্রুত হল প্রভেষ্টের সাথে মিটিং করে মশা নিধনের জন্যে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তিনি আর বলেন, ক্যাম্পাসে মশার প্রকোপ বাড়া এটি ব্যক্তি সচেতনার উপর নির্ভয় করে। হলের শিক্ষার্থীরা সচেতন না। যেখানে সেখানে পানি জমিয়ে রাখে। মশার প্রকোপ বাড়ার এটি অন্যতম কারন। 



Editor in Chief: Omar Ali
356, East Rampura, Dhaka-1219, Bangladesh.
Cell: 01712479824, nrbnews24@gmail.com