Space for rent
Monday, 16 September, 2019, 7:21 PM
কলকাতায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত তানিয়া-মঈনুলের লাশ দাফন
Published : Sunday, 18 August, 2019 Time : 9:58 PM, Count: 111
A+ A- A
আসাদুজ্জামান আসাদ, বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর থেকে

> কলকাতায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত দুই বাংলাদেশির লাশ তাদের নিজ গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে রোববার সকালে তাদের মরদেহ বেনাপোল চেকপোষ্টে পৌঁছায়। এসময় তাদের পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়। 

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মাসুম বিল্লাহ বলেন, রোববার সকাল সাড়ে ৮ টায় দুই দেশের কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে লাশ দুটি হস্তান্তর করা হয়।

মাসুম বিল্লাহ বলেন, শুক্রবার দিবাগত রাতে কোলকাতার শেক্সপিয়র সরণিতে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বাংলাদেশি নিহত হন। তারা হলেন, ঝিনাইদহের ভুটিয়ারগাতী গ্রামের কাজী খলিলুর রহমানের ছেলে মহম্মদ মইনুল আলম (৩৬) ও কুস্টিয়ার খোকসা থানার চন্দর গ্রামের আমিরুল ইসলামের মেয়ে ফারহানা ইসলাম তানিয়া (৩০)। 

কোলকাতায় গাড়িচাপায় নিহত দুই বাংলাদেশির মরদেহ সড়ক পথে অ্যাম্বুলেন্সে করে শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে রওনা দেয় এবং সকাল সাড়ে ৮টায় বেনাপোল চেকপোস্টে এসে পৌছায়।

ওই ঘটনার প্রতক্ষ্যদর্শী তাদের সফর সঙ্গী কাজী শফিউর রহমান বলেন, শুক্রবার রাতে আমরা ট্রাক্সিক্যাবের জন্য কোলকাতার শহরের শেক্সপিয়র সরণিতে দাড়িয়ে ছিলাম। এসময় দু'পাশ থেকে দুটি গাড়ি বেপরোয়া গতিতে এসে ধাক্কা লাগে। এবং একটি গাড়ি উল্টে আমাদের উপর এসে পড়ে। গুরুতর আহত অবস্থায় পুলিশসহ স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করে। আমি প্রাণে বেঁচে যাই। 

নিহত ফারজানা ইসলাম তানিয়া কুষ্টিয়ার খুকসা উপজেলার চান্দুর গ্রামের মুন্সি আমিনুল ইসলামের মেয়ে। তিনি বাবা মায়ের দুই মেয়ের মধ্যে বড় ছিলেন। তার মৃতদেহ গ্রহণ করেন চাচাতো ভাই আবু ওবায়দা শাফিন। ফারজানা ইসলাম তানিয়া সিটি ব্যাংকের সিনিয়র কর্মকর্তা হিসেবে রাজধানীর ধানমণ্ডি শাখায় কর্মরত ছিলেন।

অপরদিকে মাঈনুল আলম ঝিনাইদহের বুটিয়াঘাটি গ্রামের কাজী খলিলুর রহমানের ছেলে। তিনি গ্রামীণ ফোনের এরিয়া ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার মৃতদেহ গ্রহণ করেন চাচাতো ভাই জিহাদ আলী।


Editor in Chief: Omar Ali
356, East Rampura, Dhaka-1219, Bangladesh.
Cell: 01712479824, nrbnews24@gmail.com