Space for rent
Monday, 16 September, 2019, 7:22 PM
ঝালকাঠিতে চাঁদা না দেয়ায় দুবাই প্রবাসীর বাড়ি ভাংচুর, মামলা নেয়নি পুলিশ
Published : Monday, 9 September, 2019 Time : 6:52 PM, Count: 156
A+ A- A
আজমীর হোসেন তালুকদার, ঝালকাঠি থেকে
> চাঁদা না দেয়ায় দুবাই প্রবাসীর বাড়িতে হামলা করেছে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী। হামলা-ভাংচুরের  ঘটনার পর ৩দিন অতিবাহিত হলেও এজাহার গ্রহন করেনি থানা পুলিশ। শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে সদর উপজেলার বেশাইন খান গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর পুলিশে খবর দিলে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থল গিয়ে ৮টি মোটরসাইকেল জব্দ করেছে। এসময় পুলিশের সঙ্গে দুর্বৃত্তদের ধস্তধস্তি হয়। এতে এক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। 

পুলিশ ও ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, বেশাইনখান গ্রামের সোহরাব মোল্লার ছেলে সাইফুল ইসলাম মোল্লা প্রায় ৮/৯ বছর ধরে দুবাই থাকেন। সম্প্রতি তিনি পরিবার পরিজন নিয়ে থাকার জন্য গ্রামে একটি পাকা ভবন নির্মাণ করেন। ভবন নির্মাণের সময় স্থানীয় কয়েকজন যুবক ফোন করে তার কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। টাকা না দিলে ভবন করতে দেওয়া হবে না বলে হুমকি দেয়। হুমকি উপেক্ষা করেও তিনি ভবনটি নির্মাণ করেন। 

বর্তমানে ঘরে বাবা মা ও পরিবারের অন্যরা বসবাস করেন। ঘরের সামনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়। চাঁদার টাকা না পেয়ে একদল দুর্বৃত্ত ৬ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে তাদের বাড়িতে প্রবেশ করে। এদের মধ্যে দুইজন গিয়ে প্রথমে সিসি ক্যামেরা খুলে ফেলেন। পরে অন্যরা  মোটরসাইকেলে এসে দেশিয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে  ঘরের সামনে ভাংচুর করে। তারা ঘরের ভেতর সাজসজ্জার বাতি ভেঙে ফেলে। 

এসময় প্রবাসীর পরিবারের সবার মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তারা থানায় ফোন করলে পুলিশ গিয়ে হামলাকারীদের ধাওয়া করে। এসময় হামলাকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তধস্তি হয়। এতে এক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গেলে হামলাকারীরা চলে যায়। ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারীদের ১১টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ ব্যপারে প্রবাসী সাইফুলের বাবা সোহরাব মোল্লা এনআরবি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, হামলাকারীদের হাতে অস্ত্র ছিল। যার ফলে কেউ সামনে বের হয়ে প্রতিবাদ করতে সাহস পাইনি। এদের মধ্যে শুক্কুর মোল্লার ছেলে রাহাত ও নিক্সনকে চিনতে পেরেছি। এরআগে কীর্তিপাশা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শুক্কুর মোল্লা আমার ছেলের কাছে চাঁদা চেয়েছিল। সেই টাকা না দেওয়ায় তার ছেলেদের নেতৃত্বে হামলা ও ভাংচুর করেছে। এরপরেও টাকা না দিলে তারা আমাদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে গেছে। এ ঘটনায় আমরা থানায় মামলা দায়ের করতে গেলেও পুলিশ মামলা নেয়নি। 

বিস্তারিত দেখুন ভিডিওতে



Editor in Chief: Omar Ali
356, East Rampura, Dhaka-1219, Bangladesh.
Cell: 01712479824, nrbnews24@gmail.com